Events

ইউআইটিএস-এ নবীন বরণ ও ইফতার মাহফিল

বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত প্রথম তথ্য-প্রযুক্তি ভিত্তিক বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয়- ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস)-এর গ্রীষ্মকালীন নবীন বরণ ও ইফতার মাহফিল ০৯ জুন ২০১৭ শুক্রবার বিকাল ৪ টায় ইউআইটিএস অডিটোরিয়ামে অনুষ্ঠিত হয়। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইংরেজি বিভাগের অধ্যাপক ড. ফখরুল আলম। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)-এর কম্পিউটার সায়েন্স এ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো: কায়কোবাদ ও বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট)-এর সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো: মাজহারুল হক। অনুষ্ঠানে সম্মানীয় অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফারসি ভাষা ও সাহিত্য বিভাগের অধ্যাপক এবং ইউআইটিএস বোর্ড অব ট্রাস্টিজ এর উপদেষ্টা ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সোলায়মান। অনুষ্ঠানের শুরুতে অতিথিদের স্বাগত জানান ইউআইটিএস এর কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ড. এস আর হিলালী। এছাড়াও বক্তব্য বক্তব্য রাখেন সায়েন্স, বিজনেস ও লিবারাল আর্টস স্কুলের ডিনবৃন্দ। অনুষ্ঠান শেষে ইউআইটিএস-এর পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক অধ্যাপক আ. ন. ম. শরীফ উপস্থিত সকল আমন্ত্রিত অতিথিদের আন্তরিক ধন্যবাদ জানান। অনুষ্ঠানে আরও উপস্থিত ছিলেন দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ ও সমাজের বিভিন্ন স্তরের সম্মানিত ব্যক্তিবর্গ এবং ইউআইটিএস-এর ভারপ্রাপ্ত রেজিস্ট্রার মো: কামরুল হাসান, সকল শিক্ষক-শিক্ষিকা, কর্মকর্তা-কর্মচারী ও শিক্ষার্থীরা।

ইউআইটিএস এ এলআইসিটি (লিভারেগিং আইটি) প্রোগ্রাম

বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত প্রথম তথ্য ও প্রযুক্তিভিত্তিক বেসরকারী বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস) এ আইসিটি মন্ত্রণালয় ও কম্পিউটার কাউন্সিলের যৌথ উদ্যোগে ১ জুন ২০১৭ বৃহস্পতিবার অনুষ্ঠিত হয় এলআইসিটি (লিভারেগিং আইটি) প্রোগ্রাম। সিএসই ও আইটি বিভাগের ব্যবস্থাপনায় ইউআইটিএস এর স্কুল অব বিজনেস এর ডিন অধ্যাপক ড. সিরাজ উদ্দিন আহমেদ-এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত এ প্রশিক্ষণ কর্মশালায় প্রধান অতিথি ছিলেন মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সোলায়মান। প্রধান অতিথি বলেন, ইউআইটিএস এর শিক্ষার্থীরা প্রযুক্তিগতভাবে বিকশিত হচ্ছে এবং ভবিষ্যত চাকরি বাজারের জন্য উপযুক্ত প্রার্থী হয়ে গড়ে উঠছে। এই প্রশিক্ষণ তাদের কর্মজীবনের জন্য প্রস্তুত হতে সাহায্য করবে। এ ধরনের একটি মহতি উদ্যোগের জন্য উপাচার্য আইসিটি মন্ত্রণালয় ও কম্পিউটার কাউন্সিলকে ধন্যবাদ জানান। দ্বিতীয়পর্বের ওরিয়েন্টেশন প্রোগ্রামে ইওয়াই এর কনসালটেন্ট জনাব সুরিয়া শাস্ত্রী ছাত্রদেরকে এ প্রশিক্ষণ প্রকল্প সম্পর্কে ধারনা দেন। সভাপতি তার বক্তব্যে ছাত্রদেরকে সঠিকভাবে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের এবং নির্বাচিত হওয়ার পর যথাযথভাবে তাদের প্রশিক্ষণ সম্পন্ন করার পরামর্শ দেন। মূল্যায়ন পরীক্ষায় সফল প্রার্থীদেরকে পরবর্তীতে ১৬০ ঘন্টার একটি প্রশিক্ষণ দেওয়া হবে। অনুষ্ঠানটি সঞ্চালনা করেন সিএসই ও আইটি বিভাগের প্রভাষক আব্দুল মোতালেব।

ইমাম খোমেইনি (র.)-এর মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আলোচনা সভা

ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের প্রতিষ্ঠাতা হযরত ইমাম খোমেইনি (রহ.)-এর ২৮তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে ২ জুন, ২০১৭, শুক্রবার, বিকাল ৪ টায় বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ) মিলনায়তনে ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের উদ্যোগে ‘ইমাম খোমেইনি (র.): ঐক্য, শান্তি ও সংলাপের অগ্রদূত’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন করা হয়।

সভায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা জনাব এইচ টি ইমাম। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মসজিদের খতিব ড. সৈয়দ মুহাম্মদ এমদাদ উদ্দিন এর সভাপতিত্বে অনুষ্ঠেয় এ আলোচনা সভায় বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত ইসলামি প্রজাতন্ত্র ইরানের রাষ্ট্রদূত ড. আব্বাস ভায়েজী দেহনাভী ও ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস) এর উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মেদ সোলায়মান। অনুষ্ঠানে প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইসলামের ইতিহাস ও সংস্কৃতি বিভাগের অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ ছিদ্দিকুর রহমান খান। এ ছাড়াও আলোচনা রাখেন বিশিষ্ট ইসলামি চিন্তাবিদ ও গবেষক ড. মুহাম্মাদ ঈসা শাহেদী।

অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির ভাষণে প্রধানমন্ত্রীর রাজনৈতিক বিষয়ক উপদেষ্টা এইচ টি ইমাম বলেন, ইরানের ইসলামি বিপ্লবের রুপকার ইমাম খোমেইনি ছিলেন জনমানুষের নেতা। তাঁর বিপ্লব আমাদেরকে প্রেরণা দিয়ে চলেছে।

অনুষ্ঠানে ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস) এর উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সোলায়মান বলেন, ইমাম খোমেইনি ছিলেন, বিশ্ব ইতিহাসের একজন সফল নায়ক। তিনি সা¤্রাজ্যবাদী শক্তির মোকাবেলায় দাঁড়িয়ে ইরানে ইসলামি শাসন প্রতিষ্ঠা করতে পেরেছিলেন। তিনি তৃতীয় বিশ্বের মানুষকে বিপ্লবী চেতনায় অনুপ্রাণিত করেছেন।

অনুষ্ঠানে ঢাকাস্থ ইরানের রাষ্ট্রদূত ড. আব্বাস ভায়েজী দেহনাভী বলেন, ইমাম খোমেইনি ছিলেন শান্তিপূর্ণ গণবিপ্লবের প্রবক্তা। তিনি ইরানের তরুণসমাজকে নিরস্ত্র বিপ্লবে উদ্বুদ্ধ করেন এবং এই বিপ্লবের বিজয় ছিনিয়ে আনেন।

অনুষ্ঠানের শুরুতে স্বাগত বক্তব্য রাখেন ঢাকাস্থ ইরান সাংস্কৃতিক কেন্দ্রের কালচারাল কাউন্সেলর সৈয়দ মুসা হুসাইনি। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যাপক ও ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস) এর বোর্ড অব ট্রাস্টিজের উপদেষ্টা অধ্যাপক ড. কে এম সাইফুল ইসলাম খান, রেজিস্ট্রার মোহাম্মদ কামরুল হাসান, ল্যাঙ্গুয়েজ সেন্টারের পরিচালক ইরশাদ আহমেদ শাহীনসহ দেশবরেণ্য শিক্ষাবিদ ও ব্যক্তিবর্গ এ অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।

ইউআইটিএস-এ সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে অতিথি শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছেন গাজী রাকায়েত

 

বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত প্রথম তথ্য ও প্রযুক্তি ভিত্তিক বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় ইউনিভার্সিটি অব ইনফরমেশন টেকনোলজি অ্যান্ড সায়েন্সেস (ইউআইটিএস)-এর সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে অতিথি শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছেন বাংলাদেশের স্বনামধন্য নাট্যকার, অভিনেতা ও পরিচালক গাজী রাকায়েত। উল্লেখ্য গাজী রাকায়েত বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয় (বুয়েট) থেকে স্নাতক ডিগ্রী অর্জনের পর দীর্ঘদিন সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং পেশায় যুক্ত ছিলেন। সম্প্রতি ২০১৫ সালে সেরা পার্শ্ব অভিনেতা পুরস্কার প্রাপ্ত গাজী রাকায়েত ইউআইটিএস এর উপাচার্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ সোলায়মান এর আমন্ত্রণে সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগে অতিথি শিক্ষক হিসেবে যোগ দিয়েছেন। তাঁকে অতিথি শিক্ষক হিসেবে পেয়ে ইউআইটিএস এর শিক্ষার্থী ও শিক্ষকগণ উচ্ছ্বসিত।

ইউআইটিএস এ আইকিউএসি ওয়ার্কশপ

প্রধান অতিথি: ড. গৌরাঙ্গ চন্দ্র মোহন্ত, এনডিসি, প্রকল্প পরিচালক এবং অতিরিক্ত সচিব।

প্রধান বক্তা: অধ্যাপক ড. সঞ্জয় কুমার অধিকারী, বিশ্বব্যাংক ও ইউজিসির গুণগত মান উন্নয়ন ইউনিটের প্রধান।

প্রধান পৃষ্ঠপোষক: আলহাজ্ব সুফি মোহাম্মদ মিজানুর রহমান, চেয়ারম্যান, বোর্ড অব ট্রাস্টিজ, ইউআইটিএস এবং পিএইচপি ফ্যামিলি।

 

তারিখ: ৩১ মে ২০১৭, সময়: দুপুর ১:৩০ থেকে বিকেল ৫:০০টা।

স্থান: ইউআইটিএস হল রুম।